রাজনীতি

উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে নেওয়া হবে এরশাদকে

গুরুতর অসুস্থ জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদকে উন্নততর চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে। জাপার একটি বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে সিএমএইচ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন জাপা চেয়ারম্যানকে আগামী দু’একদিনের মধ্যেই সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে পাঠানো হবে।

বর্তমানে এরশাদ হাটুর সমস্যাজণিত রোগে ভুগছেন। আজকের মধ্যেই ভিসা প্রক্রিয়া শেষ হলে আগামীকাল তিনি সিঙ্গাপুরের উদ্দেশ্যে রওনা হতে পারেন।

একটি জাপার অপর একটি সূত্র জানায়, পুরো নির্বাচনকালীন সময়ে কৌশলগত কারণেই এরশাদকে ধরাছোঁয়ার বাইরে রাখা হতে পারে। কারণ এরশাদ দেশে থাকলে জাপার বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেবার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা তৈরি হতে পারে।

যে কারণে কৌশলগত ভাবে এরশাদকে সরিয়ে দিয়ে বেগম রওশন এরশাদকে দিয়ে তা করিয়ে নেওয়া হবে। সরকারের সাথে বেগম রওশন এরশাদের বোঝাপড়া বেশ ভালো হওয়ায় সরকারের পক্ষ থেকেই এমনটা করা হচ্ছে বলে জাপা সূত্রে জানা গেছে।

গতকাল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নোয়াখালীতে এক সংবাদ ব্রিফিং এ বলেছেন, এরশাদ গুরুতর অসুস্থ তাকে হয়তোবা বিদেশ পাঠানো হতে পারে, ওবায়দুল কাদেরের এমন মন্তব্যে নড়েচড়ে বসেছেন জাপার নীতি-নির্ধারকরা।

তবে এরশাদের সহোদর জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের চান এরশাদ দেশে থেকেই জাতীয় পার্টির নীতি-নির্ধারণী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করুক। কিন্তু এক্ষেত্রে বাগড়া হয়ে দাঁড়িয়েছে তাঁরই স্ত্রী বেগম রওশন এরশাদ। জাতীয় পার্টির একাধিক সূত্র জানায়, মহাজোটে জাতীয় পার্টির অবস্থান নিয়েই মূলত: এরশাদের সঙ্গে বেগম রওশন এরশাদের মনোমালিন্য দেখা দেয়।

এরশাদ মহাজোট থেকে পিছু হটার সিদ্ধান্ত নেবার চিন্তা-ভাবনা করলে বেগম রওশন এরশাদ সেক্ষেত্রে মহাজোটে জাপার অবস্থান পোক্ত করতে কঠোর অবস্থান নেন।

বর্তমানে জাতীয় পার্টিকে মহাজোটের শরিক হিসেবে ৪৭টি আসন বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এরশাদের চাহিদা ছিল ৭০ আর বেগম রওশন এরশাদের চাহিদা ছিল ৪৫টি। ক্ষমতাসীন দলের পক্ষ থেকে শেষ পর্যন্ত ৪৭টি আসন জাপাকে বরাদ্দ দেওয়া হয়।

বাংলা ইনসাইডার

Close
Close