জুন 18, 2024

২৫ ছাত্রছাত্রী পরীক্ষায় অংশ নেওয়া যাচ্ছে না, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রতারণা নিষ্কর্ষণে কমিটি গঠন

1 min read

বগুড়া সরকারি শাহ্ সুলতান কলেজের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রতারণার ফলে অন্তত ২৫ জন ছাত্রছাত্রী উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় অংশ নেতে পারেননি। গত দুবছরে তাদের শিক্ষামূলক কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে হয়েছিল, তবে এবার তাদের অধিকার নিষ্ক্রিয় হয়ে যাওয়া হয়েছে। তাদের প্রবেশপত্রের মাধ্যমে প্রকাশ হয়, তারা এ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী নন। এই অবুঝ অবস্থায় তারা চোখে আসতে পারেননি।

বগুড়া সরকারি শাহ্ সুলতান কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর শহিদুল আলম ব্যক্ত করেন, তারা এই ঘটনা সম্পর্কে অবহেলা করেননি। এ সমস্যা সমাধানের জন্য তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটির রিপোর্ট প্রকাশ হলে প্রতারিত ছাত্রছাত্রীদের সাথে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তবে, অভিযোগপ্রসঙ্গে অফিস সহকারী হারুনুর রশিদ তা খুঁজে পেতে বলেন, তার দ্বারা কোনো শিক্ষার্থীকে ভর্তির নামে টাকা নেওয়া হয়নি। বরং এই প্রতারণা দাবির মুখে তিনি সাক্ষ্য প্রদান করেন যে, অফিস সহকারী আবদুল হান্নান হারুনুর রশিদকে টাকা দিয়েছেন।

এই সত্য্য ঘটনা নেওয়া হলেও, বগুড়া সরকারি শাহ্ সুলতান কলেজের প্রতিষ্ঠানিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হলেও, এই অস্বীকৃতি এক মোটা গ্রাম্য প্রতিষ্ঠানের দিকে নক্ষত্রপ্রযায়ী।

এই ঘটনা জেনে এই ছাত্রছাত্রীরা প্রতারিত হয়ে যাওয়ার পরিবেশে বিশেষ আতঙ্ক অনুভব করেছেন। এই প্রতারণা বাচ্চাদের শিক্ষাজীবনে একটি নেতিবাচক দুই বছর নষ্ট হওয়ায় তাদের মাতৃভাষার প্রতি সন্দেহ আত্মত্যাগ করেছে।

এই অভিযোগের প্রকাশ হলেও, প্রতারণার শৃংখলা গুরুত্বপূর্ণভাবে নিশ্চিত হওয়ার জন্য অফিস সহকারী আবদুল হান্নান ও আবদুল জলিলের নেতৃত্বে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটি আগামী পাঁচ দিনের মধ্যে তাদের তদন্ত শেষ করতে প্রবৃত্তি করতে পারে।

এই ঘটনা আমাদের জ্ঞানে এসেছে যে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতারণা কর্তৃদল কাজে আসতে পারে, তাই এই ধরনের অস্বাস্থ্যকর ঘটনার মুখোমুখি দাবি করা প্রয়োজন।

সামগ্রিকভাবে বগুড়া সরকারি শাহ্ সুলতান কলেজের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রতারণা ঘটনা উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার প্রতি ছাত্রছাত্রীর আতঙ্ক তৈরি করেছে, যা এই প্রতিষ্ঠানের সাক্ষাৎকার নিরীক্ষা করতে প্রেরিত করেছে।