বিশ্বব্যাপী প্রশংসায় ভাসছেন সেই কিশোর, আইনি লড়াই করতে তহবিল গঠন

শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের দুটি মসজিদে হামলার ঘটনায় মুসলিম অভিবাসীদের দায়ী করা অস্ট্রেলিয়ার সিনেটর ফ্রেসার অ্যানিংয়ের মাথায় ডিম ফাটিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছেন এক কিশোর। শনিবার মেলবোর্নের মোরাবিনে সংবাদ সম্মেলনে কথা বলার সময় হেনস্তার স্বীকার হয় কট্টর এ অস্ট্রেলিয়ান সিনেটর।

এদিকে এ ঘটনার পর ব্যাপক প্রশংসায় ভাসছেন সিনেটরের মাথায় ডিম ফাটানো সেই কিশোর। সেইসঙ্গে ওই কিশোরকে হামলা ও তাকে নোংরা কথা বলার জন্যে সিনেটর ফ্র্যাসারের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের ও বহিষ্কারের দাবি তুলছে অস্ট্রেলিয়ার জনগণ। এছাড়া আটক ওই কিশোরের পক্ষে আইনি লড়াই করতে তহবিল গঠন করা হয়েছে।

বার্তা সংস্থা নিউজিল্যান্ড হেরাল্ডের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফ্র্যাসার অ্যানিংয়কে বহিষ্কারের দাবিতে চার্জডটঅর্গের মাধ্যমে অন্তত ৫ লাখ ব্যক্তি আবেদন করেছেন। এছাড়া ফ্র্যাসার অ্যানিংয়ের কঠোর সমালোচনা করছেন দেশটির অনেক রাজনৈতিক নেতা। সমালোচনা করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসনও।

কিশোরকে মারধর করায় ওই সিনেটরের সমর্থকদের নিষ্ঠুর বলে অভিহিত করেছেন দেশটির জনগণ। সেইসঙ্গে ওই কিশোরকে দিচ্ছেন হিরোর তকমা। অস্ট্রেলিয়ার একজন সিনেটর ডেরিন হিঞ্চ টুইটার বার্তায় জানান, অ্যানিংয়ের প্রতিক্রিয়া ছিল প্রবৃত্তিগতভাবে। কিন্তু, তার গুণ্ডাদের প্রতিক্রিয়া ছিলো মাত্রাতিরিক্ত।

ওই কিশোরের পক্ষে আইনি লড়াই ও আরো ডিম কেনার জন্য অর্থ সংগ্রহ করতে শুরু করেছে একটি তহবিল সংগ্রহকারী সংস্থা। জানা যায়, গত ১৭ ঘণ্টায় ‘গোফান্ডমি’ প্রচারণার মাধ্যমে সংস্থাটি ১৪ হাজার মার্কিন ডলার সংগ্রহ করেছে।

শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে জুমার নামাজের সময় অস্ট্রেলীয় বংশোদ্ভূত ডানপন্থী শেতাঙ্গ সন্ত্রাসী ব্রেন্টন ট্যারেন্টের গুলিতে ৪৯ জন নিহত হয়েছেন। এছাড়া গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি আছেন অন্তত ৪৮ জন।

তবে ভয়াবহ হামলার পর এক বিবৃতিতে ফ্রেসার অ্যানিং বলেছিলেন, মুসলিমদের উপস্থিতি বাড়ার ফলে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড উভয় সম্প্রদায়ের ভয়কে বাড়িয়ে তুলছে। তার এমন বিতর্কিত মন্তব্য সমালোচিত হচ্ছে বিশ্বজুড়ে।

আল জাজিরা জানায়, শনিবার সংবাদ সম্মেলনে অ্যানিং কথা বলার সময় তার পেছনে এক কিশোর দাঁড়িয়ে ছিল। হঠাৎ করেই ওই কিশোর বাঁ-হাতে মোবাইল ধরে ডান হাতে অ্যানিংয়ের মাথায় একটি ডিম ফাটিয়ে দেন। এর একটু আগে সে তার মোবাইলে ভিডিও করা শুরু করে। ডিম ছোড়ার পরও নির্বিকার ভঙ্গিতে ভিডিও করে যাচ্ছিল সে।

হতবাক অ্যানিং পেছনে ঘুরে কিশোরের মুখে চড় মারতে শুরু করলে দুজনের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়। এ সময় পাশে থাকা লোকজন ওই কিশোরকে মাটিতে চেপে ধরেন এবং আটক করেন, আর অন্য একজন অ্যানিংকে সরিয়ে নেয়।

আমাদের মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

এই বিভাগের পোস্ট

Back to top button
Close